1. news@banglaroitizzo.com : BanglarOitizzo :
  2. banglaroitizzo.news@gmail.com : newseditor :
মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:৫৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
৬ কারণে মানুষ ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধে আগ্রহী নয় জাতীয় পরিচয়পত্রে তথ্য ভুল হলে যেভাবে সংশোধন করবেন সাপ্তাহিক ছুটি দুই দিন, জাতীয় দিবসে খোলা পলাশবাড়ীতে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই শাপলা ডাকাত খুন! পিরোজপুরে স্বামীকে মারধরের ঘটনায় মামলা করায় স্ত্রীকে হুমকি, প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ম্যানেজ প্রক্রিয়ায় পলাশবাড়ীতে অর্ধকোটি টাকার রাস্তার গাছ সাড়ে ১২ লাখ টাকায় বিক্রি ত্রিশালে বিডি ক্লিনের পরিষ্কার-পরিছন্নতা কার্যক্রম আমতলীতে ভন্ড কবিরাজের প্রেমের ফাঁদে পড়ে কিশোরী ধর্ষন গাইবান্ধায় যৌতুকের মামলায় পুলিশ সদস্যর এক বছরের কারাদন্ড পটুয়াখালী জেলা পুলিশের মাসিক কল্যাণ ও অপরাধ সভা।

সিডিউল জমা দেয়ার পরে কাগজ পরিবর্তন শাজাহানপুরে সরকারী জলাশয়ের ইজারা নিয়ে বিরোধ

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০
  • ৫ বার পড়া হয়েছে
শাজাহানপুর ম্যাপ

বগুড়া শাজাহানপুর উপজেলায় জলমহাল ইজারার বাটকামারী জলাশয় নিয়ে দু পক্ষের বিরোধ সৃস্টি হয়েছে। এই ঘটনায় গত সোমবার উপজেলা মৎস অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ফুলকোট সততা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সভাপতি ও আমরুল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম নয়ন। প্রতিপক্ষ দরিকুল্যা মৎসজীবি সমবায় সমিতি অসম্পূর্ন এবং সমবায় আইন বহির্ভূত ভাবে ইজারা আবেদন দাখিল করেছেন বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

দরিকুল্যা গ্রামের নিজ বাড়ির উঠানে পাকা করে সেখানে অফিস করেছেন দরিকুল্যা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সভাপতি আকরাম হোসেন। আর কামারপাড়া গ্রামে সম্প্রতি শাখা অফিস খুলেছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। আইনের ভেতরে থেকে কাজ করার আশ্বাষ দিয়েছেন জলমহাল ইজারা কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি)।

ফুলকোট সততা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সভাপতি নজরুল ইসলাম নয়ন জানান, তার সমিতি জলাশয় থেকে আধা কিলোমিটার দূরত্বে। আর প্রতিপক্ষ দরিকুল্যা মৎসজীবি সমবায় সমিতি জলাশয় থেকে প্রায় ৯কিলোমিটর দূরে। সিডিউল ড্রপ করার পরে কামারপাড়া এলাকায় একটি অফিস ঘর দেখাচ্ছে। ওই সমিতি সিডিউলের সাথে ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট না দিয়ে ওই সমিতির সভাপতি আকরাম হোসেনের ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসেবের কাগজ দিয়েছেন। অসম্পূর্ন আবেদন বাতিল করার কথা থাকলেও জলমহাল ইজারা কমিটি অসম্পূর্ন সেই সিডিউল বাতিল করেন নাই। একটি মহল নেপথ্যে থেকে প্রতিপক্ষকে বিলটি পাইয়ে দিতে তৎপরতা চালাচ্ছে বলেও তিনি দাবী করেছেন।

দরিকুল্যা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সভাপতি আকরাম হোসেন জানান, দরিকুল্যা গ্রামে তার বাড়ির উঠানে পাকা করে সেখানে সমিতির অফিস করা আছে। সেখানেই লোকজন নিয়ে বসেন। সিডিউল ড্রপ করার পরে কামারপাড়া এলাকায় একটি শাখা অফিস করেছেন। সমিতির কর্মক্ষেত্র কোন গ্রাম পর্যন্ত তা তিনি জানেন না। জলাশয়টি পেলে তার লভ্যাংশ মসজীদে দান করে দেবেন। মসজীদ কমিটি এবং নামাযের লোকজনই সমিতির সদস্য। সিডিউলের সাথে প্রথমে নিজের ব্যাংক হিসেবের কাগজ দিলেও কয়েকদিন পরে সমিতির ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট দিয়েছেন।

উপজেলা মৎস অফিসার আয়েশা খাতুন মোবাইল ফোনে জানান, ইজারা কমিটির সভাপতি এবং সদস্য সচিব যেটা করবেন সেটাই হবে।
উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) মোঃ আশিক খান মোবাইল ফোনে জানান, আইনের ভেতরে থেকেই কাজ করা হবে। কোন মহল প্রভাবিত করতে পারবে না। এই ঘটনায় তদন্ত করা হয়েছে। আগামী ১৬তারিখ কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে জলাশয়টি কোন সমিতি পাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

নিউজ ক্যাটাগরি