1. news@banglaroitizzo.com : BanglarOitizzo :
  2. banglaroitizzo.news@gmail.com : newseditor :
বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৩:১৫ অপরাহ্ন

সাংবাদিকদের জন্য প্রনোদনা বাস্তবায়ন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভীনন্দন

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০
  • ৮ বার পড়া হয়েছে
প্রধানমন্ত্রী

দেশের সকল সাংবাদিকদের জন্য আন্দোলন করেযাওয়া সাংবাদিক জীবন কৃষ্ণ দেবনাথের দাবী সাংবাদিকদের প্রনোদনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা, প্রতি সাংবাদিকের জন্য করোনা কালিন ভাতা হিসাবে ১০.০০০ দশ হাজার টাকা প্রদান করার ঘোষনা দিয়েছেন, মাননীয় তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহামুদ।
পৃথিবী জুড়ে যখন করোনাভাইরাসের কারণে বৈশ্বিক সমস্যা দেখা দিয়েছে। এর প্রভাব থেকে মুক্ত হতে পারেনি বাংলাদেশও। এরই প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রনোদনা ঘোষণা করেছেন বিভিন্ন সেক্টরে। কিন্তু সাংবাদিকদের জন্য ধন্যবাদ ছাড়া আর কোনো প্রনোদনা দেননি প্রধানমন্ত্রী।

এতে সাংবাদিক সমাজের মধ্যে এক ধরণের হতাশা দেখা দিয়েছে। আমার কাছে সম্প্রতি কয়েকজন সাংবাদিক তাদের সংসারে যে দারিদ্র্যতা দেখা দিয়েছে, তা ফোনে জানিয়েছেন। কিন্তু আমি অসহায়ের মতো চাপা কান্নাগুলো কান পেতে শুনেছি। শুধু সান্তনার বানী দিয়েছি। আর বলেছি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিক বান্ধব। তাই একটু অপেক্ষা করুণ আপনাদের জন্য অবশ্যই প্রধানমন্ত্রী কিছু একটা করবেন। আমরা সাংবাদিকতা করি তাই লোকলজ্জায় কাউকে বলতে পারিনা, আমার বাসায় বৌ,বাচ্ছা নাখেয়ে আছে, কারন মানুষ মনেকরে সাংবাদিকরা অনেক টাকা পয়সার মালীক, আসলে কষ্টের কথা কেউ বুঝেনা কারন আমরা সাংবাদিক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা, আপনি আমাদের সাংবাদিক সমাজের মা, সাংবাদিকদের বিবেক মাগো পেটে যদি খাবার নাথাকে হাতেতো অন্যায়ের বিরুদ্বে কলম ধরার শক্তি পাবোনা। আপনার দেওয়া আমার চিকৃৎসার জন্য যে অনুদানটা আমাকে দিয়েছিলেন তাও আমি নিজের চিকৃৎসা না করে করোনাভাইরাসে নিপেডিত জনগনের জন্য আত্মমানবতার কল্যানে ব্যায় করেছী।

সম্প্রতি একজন সাংবাদিক বলেছেন, তাদের অফিসে বেতন দেয়া হয়নি। বরং পত্রিকাটি সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এমনকি কবে নাগাদ বেতন দেয়া হবে তাও বলেনি কর্তৃপক্ষ। তিনি বলছিলেন, তার ছেলে-মেয়ে নিয়ে এখন কি করবেন। সংসার চলবে কি করে? এমন কথা শুনে আমার চোখে জল এসেছিলো। কিন্তু কিছুই বলতে পারিনি। কারণ আমিও একজন ছাপোষা সাংবাদিক।

মাস শেষে যে বেতন পাই তাই দিয়ে সংসার চলে। এই পরিস্থিতি যদি আমারও হয় (বেতন বন্ধ হয়ে যায়), তাহলে সংসার চলবে কি করে? এমন আশঙ্কা আমার মধ্যেও কাজ করছে। সাংবাদিকদের জন্য জীবন বাজীরেখে প্রনোদনার জন্য লড়ে যাওয়া সাংবাদিক দৈনিক আজকালের দর্পণ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক জীবন কৃষ্ণ দেবনাথকে বাংলাদেশ নাগরিক সাংবাদিক ক্লাবের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানো হয়েছে। কেবল মাত্র তারই একমাত্র চেষ্টার ও আন্দোলনের কারণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা সাংবাদিকদের জন্য প্রনোদনা বাস্তবায়ন করেছেন।

তারপরেও আমরা যারা সাংবাদিক সংগঠনের সদস্য নই আমাদের কথা কেউ ভাবেনা, তাই বলি মাগো, সাংবাদিক সংগঠনের সদস্য হতে পারিনাই যারা তারাওতো সাংবাদিক, আমাদেরতো বাঁচার অধীকার আছে। যারা দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে আছে সংগঠনের বাহিরে তাদের কথা না ভেবে পারছি না।নিজের কথা ভাববার আগেই তাদের কথা মনে পরে। কারণ এসব সাংবাদিকরার আজ
অনেকই দিন আনেন দিন খান।তাদের কি হবে। ছেলে-মেয়ের মুখে খাবার তুলে দেবেন কিভাবে?

আমার জানা মতে, সাংবাদিকদের সংগঠন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নেতারা মাননীয় তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ২০ কোটি টাকার একটি প্রনোদনার জন্য আবেদন করেছেন।ইতোমধ্যে বিএফইউজের মহাসচিব জনাব শাবান মাহমুদও একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে বলেছেন, খুব শিগগিরই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আগামী সপ্তাহে সাংবাদিকদের জন্য একটি ঘোষণা আসতে পারে। এতে কিছুটা হলে আশার আলো দেখছি। তারপরেও বলছি, অনেক পত্রিকা, টেলিভিশন ও অনলাইন পত্রিকায় বেতন হয়নি। কবে নাগাদ হবে, তারও কোনো নিশ্চয়তা নেই।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার কাছে আমার আবেদন, এই করোনা সংকটে সাংবাদিকদের জন্য কিছু একটা করুণ। সাংবাদিকরা তাদের কষ্টের কথা সম্মানের দিক তাকিয়ে বলতে পারছেন না। দেশের সব শিল্পপ্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরা মাঠে নামতে পারেন বেতনের দাবিতে।

এমনকি তাদের দাবি লেখনির মাধ্যমে জাতির কাছে তুলে ধরেন সাংবাদিকরা। শুধু তাই না, সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডও তুলে ধরেন সাংবাদিকরা। যেহেতু একটি রাষ্ট্রের সংবাদপত্র চতুর্থ স্তম্ভ। তাই সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা বাচিয়ে রাখতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি কিছু একটা করুন। আপনার একটি ঘোষণার অপেক্ষায় সাংবাদিকরা। আমাদের প্রান প্রিয় সাংবাদিক সংগঠনের প্রিয়ভাজন কর্মকর্তা দের আসু নজর দারীকামনা করছী, আমরা যারা আপনাদের সংগঠনের সদস্য হতে পারিনাই, আমাদের দিকেও আপনাদের একান্ত সহযোগীতা কামনা করেছি ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

নিউজ ক্যাটাগরি